বিএনপি অসত্য তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করছে: হানিফ





শেয়ার

ঘরের বাইরে বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মাস্ক পরা নিশ্চিত হওয়ার নির্দেশনার বিষয়ে প্রশাসনকে কঠোর অবস্থানে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। তিনি বলেন, জীবন ও জীবিকার দুইটিকেই মাথায় রেখে সব সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। যেমন করোনা সংক্রমণ রোধ করার জন্য লকডাউনের প্রয়োজন, তেমন এ দেশে জীবিকা নির্বাহ করার জন্য কর্মঠ প্রয়োজন। সব দিক বিবেচনা করে সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।  

 

  বুধবার (১৪ জুলাই) দুপুরে কোভিড ডেডিকেটেড কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির করোনা সংকটে মতবিনিময় সভা শেষে তিনি এসব কথা বলেন। তবে ঈদের পর থেকে আবারও কঠোর লকডাউনের ঘোষণা করা হবে বলে তিনি জানান।   টিকার বিষয়ে তিনি বলেন, এখন আর টিকা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই দেশের ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ মানুষের টিকা প্রদান নিশ্চিত করা হবে।  

 

এ সময় মির্জা ফখরুলকে উদ্দেশে করে তিনি বলেন, কোনটা পরিকল্পিত আর কোনটা অপরিকল্পিত এটা তাদের মুখে মানায় না।   যারা রাষ্ট্রপরিচালনার দায়িত্ব নিয়ে সীমাহীন ব্যর্থতা দুর্নীতি-অনিয়ম সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কারণে জনধিকৃত আজকে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে আছে তাদের মুখে এই ধরনের নীতি বাক্য কথা মানায় না। এটা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এই ১২ বছরের দেশটাকে আজকের একেবারে অন্ধকার থেকে আলোয় দিয়েছেন। যা সারা বিশ্বে আজ প্রশংসিত হচ্ছে। সঠিক পরিকল্পনার যদি কোনো অমিল থাকতো তাহলে দেশটাকে উন্নয়নের দিকে আজ পিছিয়ে যেত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিকল্পনার বিষয়ে সিদ্ধান্ত বিএনপির নেতারা কোনদিনও পজিটিভ কথা বলেনি, এখনও বলবে না। বিএনপি সব সময় সরকারের সমালোচনা করার জন্য নীতিবাচক কথা ও মিথ্যা-অসত্য তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করা। এটা ছাড়া তাদের আর কোনো কাজ নেই।  

 

এর আগে উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করতে চিকিৎসা সেবা ও ব্যবস্থাপনায় কোন ক্রটি আছে কিনা তা ঘুরে দেখেন।   জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদেরকে উদ্দেশে করে তিনি বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করে তারা সমর্থন পাবে বলে মনে করছেন। সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করলেই জগণের সমর্থন পাওয়া যায় না। জনগণের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের জন্য কাজ করলেই জগণের সমর্থন বৃদ্ধি পায়। সরকারের বিরুদ্ধে অযৌক্তিক কথাবার্তা বলে কোনো লাভ হবে না বলে তিনি জানান।  

 

এ সময় ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ এমপি, জেলা প্রশাসক সাইদুল ইসলাম, পুলশ সুপার খাইরুল আলম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতাসহ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা উপস্থিত ছিলেন।

রাজনীতি


শেয়ার