প্রেস বিজ্ঞপ্তি ”বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী বত্রিশটি জেলার মাদক পাচারের চিত্র এবং পাচার মোকাবেলায় সমন্বিত কৌশল নির্ধারণ গবেষনা কাজের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কর্মশালা অনুষ্ঠিত





শেয়ার

মাদকদ্রব্য পাচার, আসক্তি নির্মুল, মাদকের অপপ্রয়োগ নিয়ন্ত্রণে সরকারের রাজনৈতিক স্বদিচ্ছা ও আন্তরিকতার পাশাপাশি সরকারের বিভিন্ন বিভাগের সুষ্ঠু সমন্বয়, প্রশাসনিক সক্ষমতা বৃদ্ধি, নাগরিক সমাজ, বেসরকারী উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান ও গণমাধ্যমের সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন। মাদকের ভয়াল আগ্রাসী হানায় অনেক সম্ভাবনাময় জীবন হারিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু মাদক পাচারের সাথে যুক্ত কিছু অসাধু মানুষের অর্থ লিপ্সা ও রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় অপরাধীদের সামাজিক পূর্নবাসনের কারনে সরকারের অনেক উদ্যোগ থাকলেও মাদকের পাচার ও বিস্তার ঠেকানো যাচ্ছে না। মাদক পাচারকারীরা নিত্য নতুন কৌশলে মাদক পাচার করে ভয়াবহতাকে ক্রমাগত বিস্তৃতি ঘটাচ্ছেন। তাই এখন প্রয়োজন মাদকের বিস্তার, পাচার ও অবৈধব্যবসা বন্ধে সামাজিক ও রাস্ট্রীয় প্রতিরোধ। ১৪ জুন ২০২২ইং চট্টগ্রামের আইচ ফ্যাক্টারী রোড়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর মিলনায়তনে স্টেপস্ টুয়ার্ডস ডেভেলপমেন্ট-ঢাকা এর উদ্যোগে চিটাগাং সোস্যাল ডেভেলপমেন্ট ফোরাম(সিএসডিএফ) এর ব্যবস্থাপনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর সহযোগিতায় “বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী বত্রিশটি জেলার মাদক পাচারের চিত্র এবং পাচার মোকাবেলায় সমন্বিত কৌশল নির্ধারণ গবেষনা” কাজের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কর্মশালায় বিভিন্ন বক্তাগন উপরোক্ত মতামত ব্যক্ত করেন।

ক্যাব কেন্দ্রিয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় গোয়েন্দা প্রধান মোঃ আবুল হোসেন, বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ- কমিশনার আমেদ আলী, চট্টগ্রাম জেলা উপ-পরিচালক মুকুল জ্যোতি চাকমা, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর লুৎফুন্নাহার দোভাষ বেবী, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি এম নাসিরুল হক, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্যানেল মেয়র ও চট্টগ্রাম ইউমেন চেম্বারস অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের ভাইস প্রেসিডেন্ট রেখা আলম চৌধুরী, এডাব চট্টগ্রামের সভাপতি জেসমিন সুলতানা পারু, আনসার ভিডিপির সার্কেল অ্যাডজুটেন্ট মোঃ আলাউদ্দীন, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের ডেপুটি কমিশনার আবদুল হান্নান। ক্যাব চট্টগ্রাম এর সাধারন সম্পাদক কাজী ইকবাল বাহার ছাবেরীর সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশনেন স্টেপস টুয়ার্ডস ডেভেলপমেন্ট এর কর্মসূচি সমন্বয়কারী চন্দন লাহড়ী, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর আবিদা আজাদ ও আনজুমান আরা বেগম, বনফুলের নির্বাহী পরিচালক রেজিয়া বেগম, নারী উদ্যোক্তা আর্গিস আকতার নীরা, ভেজিটেবল এক্সপোর্টাস অ্যাসোসিয়েশনের মোঃ সেলিম জাহাঙ্গীর, ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা সভাপতি আলহাজ¦ আবদুল মান্নান, নারী নেত্রী ঝর্না বড়–য়া, রুবি খান, ক্যাব বন্দরের আলমগীর বাদসা, দৈনিক পূর্বদেশ এর নিজস্ব প্রতিনিধি এম এ হোসেন, দৈনিক বাংলাদেশ সমাচারের ব্যুরো প্রধান কমল চক্রবর্তী, কলামিস্ট মুসা খান, সমাজ কর্মী হারুন গফুর ভুইয়া ও শাহীন চৌধুরী, ক্যাব যুব গ্রæপের সদস্য আবু হানিফ নোমান, নারী নেত্রী শাহীন শিরিন, ক্যাব মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস, হালিশহর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি এমদাদুল হক সৈকত, জেলা সামাজিক উদ্যোক্তা পরিষদের যুগ্ন সম্পাদক মোঃ জানে আলম, প্রশান্তি মাদক নিরাময় কেন্দ্রের মোঃ শাহজাহান, পার্কের নির্বাহী পরিচালক নজরুল ইসলাম মান্না প্রমুখ।

কর্মশালায় বক্তারা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সক্ষমতাবৃদ্ধির পাশাপাশি সরকারের বিজিবি, আনসার, পুলিশ, স্থানীয় সরকার ও প্রশাসনের অধিকতর সমন্বয় জোরদার করা উচিত। মাদক কারবারীরা যেন রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষতায় যেন মামলা থেকে রেহাই না পান ও সামাজিকভাবে পুর্নবাসিত না হন এ জন্য সরকারকে বিশেষভাবে উদ্যোগী হবার আহবান জানান। স্থানীয় আইন শৃংখলাবাহিনী যাতে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত হয়ে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্বপালন করতে পারেন সেজন্য পরিবেশ নিশ্চিত করার সুপারিশ করা হয়। একই সাথে মাদক নির্মূলে জনসম্পৃক্ততা বাড়ানো, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরসহ একাজে নিয়োজিত সরকারী-বেসরকারী সংস্থার কাযক্রমকে নাগরিক পরীবিক্ষনের আওতায় আনার সুপারিশ করা হয়। তরুন জনগোষ্ঠিকে মাদক নির্মূলে সম্পৃক্ত করা, তৃণমূল পর্যায়ে বেসরকারী উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও বেশী করে মাদকবিরোধী প্রচারভিযানে সম্পৃক্ত করার সুপারিশ করা হয়।

চট্টগ্রাম


শেয়ার

আরও পড়ুন