আজকের সর্বশেষ

ওব্যাট হেল্পার্স'র সেমিনারে মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী : পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মর্যাদা নিশ্চিত করতে হবে

ওব্যাট স্কাউট গ্রুপ চট্টগ্রাম কে বেস্ট এ্যাওয়ার্ড প্রদান

সভাপতি- খায়রুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক- কেফায়েতুল্লাহ কায়সার। জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা চট্টগ্রাম বিভাগের নতুন কমিটি

জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান হলেন চট্টগ্রামের সাংবাদিক খায়রুল ইসলাম, ও যুগ্ম মহাসচিব কেফায়েতুল্লাহ কায়সার

চ্যানেল কৃষি সন্মাননা পেলেন লেখক ও সংগঠক শামছুল আরেফিন শাকিল

চ্যানেল কৃষি সন্মাননা পেলেন নির্মাতা ও অভিনেতা মোশারফ ভূঁইয়া পলাশ

আইএফআইসি ব্যাংক শিবের হাট উপশাখা উদ্বোধন

জাপান বুঝিয়ে দিলো ফুটবল শুধু পশ্চিমের নয়


জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার ৪০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে বক্তারা: সাংবাদিকরা দেশের নিরব পাহারাদার





শেয়ার

কেফায়েতুল্লাহ কায়সার : স্বাধীন বাংলাদেশের ঠিক অল্প কিছুদিন পর ১৯৮২ সালের ১২ ফেব্রæয়ারি ঢাকায় কিছু প্রবীণ সাংবাদিকদের হাত ধরেই প্রতিষ্ঠিত হয় জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা। সাংবাদিক ও সাংবাদিকতায় অনন্য অবদান রাখা সরাকারী নিবন্ধিত (নিবন্ধন নং-সি-৯৫০৭৪/১১) সংবাদকর্মীদের এই সংগঠনটির আজ গৌরবের ৪০ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। দিনটিকে স্মরণীয় ও বরণীয় করে রাখতে সারাদেশের প্রত্যেকটি উপজেলায় জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার ৪০ বছর উদযাপন করেছে সংগঠনটি। একইভাবে বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে চট্টগ্রাম জেলা কমিটিও ১২ ফেব্রæয়ারি সকাল ১১ টায় নগরির হালিশহর, এ-বøকে কেক কাটা, আলোচনা সভা ও নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। প্রবীণ এই সংগঠন জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি রাবেয়া খাতুন শিমুলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কেফায়েতুল্লাহ কায়সার এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ১১,২৫ ও ২৬ ওয়ার্ড এর মহিলা কাউন্সিলর হুরে আরা বেগম বিউটি। এ সময় বক্তারা বলেন, ‘সাংবাদিকরা দেশের নিরব পাহারাদার। তারা দেশ, সরকার, জনপ্রতিনিধি তথা নীতিনির্ধারকদের সহযোগী। তাঁরা জনপ্রতিনিধিদের ছায়া স্বরুপ। সংবাদকর্মী প্রতিনিধিদের পাশে থাকে সব সময়। একজন সংবাদকর্মী নীতিনির্ধারকদের সহজ পথটি দেখিয়ে দিতে সাহায্য করে। সাংবাদিক রাজনীতিবীদের বিপরীত কর্মকান্ডের যেমন গঠনমূলক সমালোচনা করে তাঁকে সাহায্য করেন। তেমনি প্রতিনিধির দেশ ও সমাজ কল্যাণমূলক কাজের জন্য আরো উৎসাহিত করতে চালিয়ে যান পৃষ্ঠা ভরপুর তাঁর লেখনি। সাংবাদিক কারো বন্ধু নয়। আবার কারো শত্রুতা করাও সংবাদকর্মীর কাজ নয়। সাংবাদিক তাঁর দু’চোখ ও তথ্য উপাত্তের মাধ্যমেই তাঁর কলম চর্চা করে। একজন কলম সৈনিক তাঁর কলমের সাথে কখনো আপোষ করে না। একজন লেখক জনপ্রতিনিধির পিছনে তাঁর ভাল-মন্দের নির্বাচক। গণমাধ্যম তথা সংবাদপত্র সমাজের দর্পণ। এক কথায় বলা যায় দেশ ও সমাজের জন্য একটি সংবাদ পত্র ও একজন গণমাধ্যমকর্মীর গুরুত্ব অপরিসীম। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন, সাংবাদিক এমদাদুল করিম সৈকত, মামুন আল রশিদ, মোবারক হোসেন ভূইয়া, আব্দুল হান্নান হীরা, ইব্রাহিম খলিল উল্লাহ, সাইদুল করিম সাজু, সোহাগ আরেফিন, আব্দুস সামাদ রিফাত, সাজ্জাদ মাহমুদ, মোহাম্মদ নাছির, মো. আবু ইউসুফ, মো. শিপন হোসেন, তাজুল ইসলাম কামরুল প্রমুখ।

চট্টগ্রাম


শেয়ার

আরও পড়ুন