‘বইপড়া ও আত্মোপলব্ধির মাধ্যমে জ্ঞানের প্রকৃষ্ঠ প্রয়াস জরুরি’





শেয়ার

লেখক ও কলামিস্ট সৈয়দ জুলকরনাইন’র ‘প্রিয় রাসূল (দ:) ও অন্যান্য প্রসঙ্গ’ এবং ‘সুনীতি, দুর্নীতি এবং রাজনীতি’ বইদ্বয়ের প্রকাশনা ও মোড়ক উন্মোচন আজ ২০ই মার্চ শনিবার সকাল ১১টায় জামালখানস্থ চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের এস রহমান হলে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

 

প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান আপন আলোর আয়োজনে এবং আল্লামা সৈয়দ দোস্ত মুহাম্মদ (রহঃ) ফাউন্ডেশনে’র সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত বইদ্বয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাবেক মুখ্যসচিব মুহাম্মদ আব্দুল করিম। আল্লামা সৈয়দ দোস্ত মুহাম্মদ (রহঃ) ফাউন্ডেশনে’র সম্মানিত সভাপতি, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী আলহাজ্ব সৈয়দ মুহাম্মদ মুজাহিদ’র সভাপতিত্বে এবং এসডিজি ইয়ুথ ফোরাম’র মুখপাত্র মিনহাজুর রহমান শিহাব’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিক্ষাবিদ শামসুদ্দিন শিশির। মুখ্য আলোচক ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, চট্টগ্রাম অঞ্চলের উপ-পরিচালক ড. গাজী গোলাম মাওলা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম কলেজের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক মুজিব রাহমান এবং খলিলুর রহমান মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আবু তৈয়ব। 

 

এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন আল্লামা সৈয়দ দোস্ত মুহাম্মদ (রহঃ) ফাউন্ডেশনে’র সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মুহাম্মদ জুন্নুরাইন, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি চট্টগ্রাম মহানগর’র সভাপতি মোহাম্মদ ইলিয়াস ও ফিউশন ডিজাইন এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এর এমডি লায়ন এম.এ হোসেন বাদল সহ অন্যান্যরা। 

 

মুহাম্মদ আব্দুল করিম বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এসে বাংলাদেশ বিভিন্ন সূচকে অভূতপূর্ব উন্নতি সাধন করতে সমর্থ হয়েছে। করোনাকালীন দুরাবস্থার পরও প্রবৃদ্ধির সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগামীতা তারই প্রতিচ্ছবি।  শিল্প, সাহিত্য, অর্থনীতি বিভিন্ন খাতে বাংলাদেশের অগ্রগতি বহির্বিশ্বের কাছেও আজ প্রশংসিত হচ্ছে। জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হলে সকল পর্যায়ে সুষম উন্নয়ন, সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দুর্নীতির মতো অন্তরায়কে উপেক্ষা করে এগিয়ে যেতে হবে। 

 

তিনি আরো বলেন, সৈয়দ মুহাম্মদ জুলকারনাইনের লেখনিতে সমসাময়িক বিষয়াবলির উপর নিরপেক্ষ, স্পষ্টতা ও সত্যাবলম্বন তার লেখনির মাধুর্য ও গ্রহণযোগ্যতা আরো বৃদ্ধি করেছে। ড. গাজী গোলাম মাওলা বলেন, বই মানুষের মেধা, মনন ও চিন্তা চেতনা স্বত্বার অবিকল বহিঃপ্রকাশ। জ্ঞান সৃজনে, সৃজনশীল মনন জগতকে প্রসারিত করতে ও জ্ঞানের প্রকৃষ্ট অর্থ আত্মোপলব্ধি ক্ষমতা জাগ্রত করতে বই মানুষকে সহায়তা করতে পারে। সৈয়দ মুহাম্মদ জুলকরনাইন বলেন, বৈষম্যহীন সমাজ বিনির্মাণে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ ছিলেন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ)।  সমাজনীতি, রাষ্ট্রনীতি সর্বোপরি সকল নীতি অবলম্বনে তার দেখানো পথ যেকোনো সমাজব্যবস্থায় বিরাজমান অস্থিরতা ও বৈষম্য নিরসনে ভূমিকা রাখতে সক্ষম। পাঠক হৃদয় জয় করতে সহজ, সাবলীল ভাষায় সমসাময়িক বিষয়াবলির সত্যতা ও স্পষ্টতা প্রকাশিতব্য বই দু’টিতে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়েছে।

 

চট্টগ্রাম


শেয়ার