‘অমাবস্যার সময় জ্যোস্নার আলো নিয়ে এসেছিলেন খোরশেদ আলম সুজন’





শেয়ার

সৈকত প্রকৃতি: অমাবস্যার মধ্যে জ্যোস্নার আলো  হয়ে এসেছিলেন খোরশেদ আলম সুজন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। সবাইকে প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। নব নির্বাচিত মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী আমাদের চট্টগ্রামবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করবেন বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

 

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত জ্যোৎস্না উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এসব কথা বলেন। 

 

আজ ৩০ জানুয়ারী শনিবার সন্ধ্যায় ঐতিহ্যবাহী লালদিঘি পার্কে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত জ্যোৎস্না উৎসবের আয়োজন করা হয় ।

 

‘তুমি নির্মল করো মঙ্গল করো’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের রচিত প্রার্থনা সংগীত দিয়েই আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হয় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত জ্যোস্না উৎসব।

 

জ্যোৎস্না উৎসবের সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন। তিনি বলেন - নাগরিক জীবনে আমরা আমাদের ঐতিহ্যকে ভুলে যেতে বসেছি। তাই চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে জ্যোৎস্না উৎসবের এই আয়োজন। 

তিনি সকল অতিথি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানকে সুন্দর করার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। 

 

চট্টগ্রামের প্রয়াত গীতিকার ও সংগীতজ্ঞ এম এন আখতারের জনপ্রিয় গান ‘কইলজার ভিতর গাঁথি রাইক্যুম তোঁয়ারে,বানুরে জী, ও বানু জী আঁই’, গান দুটি পরিবেশ করেন শিল্পী শহীদ ফারুকী এবং মনি সেন।

 

চাঁদের হাসি বাঁধ ভেঙ্গেছে, কর্ণফুলীর সাম্পানওয়ালা আঁরে মন কাইরা নিলো। একে একে চট্টগ্রামের জনপ্রিয় গান গুলো পরিবেশন করেছেন বিভিন্ন শিল্পীবৃন্দ।

 

সংগীত পরিবেশন করেন অনুপম দেবনাথ পাভেল, বৈশাখী নাথ, ইকবাল হায়দারসহ চট্রগ্রামের জনপ্রিয় শিল্পীবৃন্দ।

 

অনুষ্ঠানের এক ফাঁকে ছিলো সাংস্কৃতিক আড্ডা। আড্ডায় অংশ নেন চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের সচিব আব্দুল আলীম (এ্যালেক্স আলীম), চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম বাবু, আবৃত্তি শিল্পী মিলি চৌধুরী, র‌্যাংগস এফসি প্রপার্টিজ'র সিইও তানভীর শাহরিয়ার রিমন এবং জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বিদ্যুৎ বড়ুয়া। আড্ডার সসঞ্চালনা করেন সাবের শাহ্। 

 

অনুষ্ঠানে গানের ফাঁকে ফাঁকে ছিলো ফানুস ওড়ানো, যাদু পরিবেশন এবং মনোমুগ্ধকর নৃত্য। 

 

পুরো অনুষ্ঠানটির উপস্থাপনায় ছিলেন আবৃত্তি শিল্পী ও নাট্য কর্মী কংকন দাশ। লোকগান দিয়েই অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

চট্টগ্রাম


শেয়ার