শেখ হাসিনার উদারতায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় মানবাধিকারের বিশ্ব ইতিহাসে এক বিরল দৃষ্টান্ত





শেয়ার

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব. এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, বিশ্বে যখন মানবাধিকার পরিস্থিতি চরম বিপর্যয়ের মুখে তখন মানবতার মা খ্যাত বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সাড়ে দশ লক্ষ আশ্রয়হীন রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দিয়ে বিশ্ব দরবারে এক নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। এরকম মানবতার বিরল ইতিহাস বিশ্বে আর দ্বিতীয়টি নেই। আজ বিশ্বের সকল ক্ষমতাধর রাষ্ট্র সমূহ বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ভাবতে বসেছে। বলতে গেলে মানবাধিকারের বিশ্ব ইতিহাসে এক বিরল দৃষ্টান্ত ও উদারতার ইতিহাস জননেত্রী শেখ হাসিনার উদারতায় আশ্রয়হীন রোহিঙ্গাদের আশ্রয়দান।

 

ডিজিটাল আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগীয় শাখার উদ্যোগে বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে ১০ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় নগরীর মোমিন রোডস্থ সুপ্রভাত স্টুডিও হলে আলোচনা সভা, সম্মাননা প্রদান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম. রেজাউল করিম চৌধুরী এ কথা বলেন। 

 

রেজাউল করিম চৌধুরী আরো বলেন, ৭৫ সালে যখন বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে তখন বিশ্ব মানবতা নিরব ছিল। বিশ্বের ইতিহাসে এক জঘন্যতম নারকীয় ঘটনা ৭৫’র বঙ্গবন্ধু হত্যা কান্ড। তিনি বলেন বিশ্বের কোন ব্যক্তি তখন সাহস করে কথা বলেনি। তখন মানবাধিকার ও মানবতা কথায় ছিল। আজ বিশ্বে যেখানে মানবতা ভুলষ্ঠিত হচ্ছে সেখানে বাংলাদেশ আজ মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে। 

 

অনুষ্ঠানে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক সংগঠক মফিজুর রহমান। 

 

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও মানবাধিকার সংগঠক স ম জিয়াউর রহমান’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের বিভাগীয় সভাপতি বিশিষ্ট মানবাধিকার নেতা ও ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হাসান মুরাদ। 

 

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম, বিশিষ্ট কলামিস্ট ও গবেষক ড. মাসুম চৌধুরী, ডিজিটাল বাংলাদেশ পাবলিসিটি কাউন্সিলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন চৌধুরী,চট্টগ্রাম সরকারি সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রসংসদের সাবেক ভিপি আবুল মনসুর মোহাম্মদ মঈনুদ্দিন, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারবর্গের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন চৌধুরী, বিশিষ্ট কবি ও ছড়াকার আবছার উদ্দিন আহাম্মদ চৌধুরী, চন্দনাইশ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম চৌধুরী, ওমান প্রবাসী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক রহমত উল্লাহ তালুকদার, চট্টগ্রাম মহানগর যুব মহিলা লীগের যুগ্ম আহবায়ক জাহানারা সাবের, ৯নং ওয়ার্ড যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাজেদা বেগম সাজু । 

 

বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহ-সভাপতি হাজী মোঃ ইউনুচ, আবুল হাশেম, মাছুমা কামাল আঁখি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. মোঃ জামাল উদ্দিন, অধ্যাপক সুমন দত্ত, প্রচার সম্পাদক মোঃ আইয়ুব, অর্থ সম্পাদক মোঃ গোলাম রহমান, ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ বায়েজিদ ফরায়েজী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. সাগর চন্দ্র দে, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ডা. হারাধন দাশ, চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি মোঃ রাসেল, চট্টগ্রাম মহানগর ভাড়াটিয়া পরিষদের সভাপতি মোঃ কালিম শেখ, বীর মুক্তিযোদ্ধা এস.এম. লিয়াকত হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দিন আহমেদ, কবি সজল দাশ, রতন ঘোষ, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, ইউনুচ মিয়া খাঁন, মোঃ মান্নান রানা, মোঃ হাসান তিতাস, শিউলী আক্তার, হানিফুল ইসলাম চৌধুরী, ছবির আহমদ, শিল্পী নারায়ন দাশ, মুনালিসা আক্তার, শেখ মহিউদ্দিন বাবু প্রমুখ। 

 

আলোচনা সভা শেষে প্রধান অতিথি এম. রেজাউল করিম চৌধুরী মানবাধিকার ও সমাজসেবায় বিশেষ অবদান রাখায় ১০ জন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের হাতে মানবাধিকার সম্মাননা তুলে দেন।

চট্টগ্রাম


শেয়ার



আরও পড়ুন