নার্স দিয়ে অস্ত্রোপচার অত:পর রোগীর মৃত্যু অবশেষে ক্লিনিক সিলগালা





শেয়ার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার এলাকার সিটি হেলথ্ ক্লিনিকে নার্স দিয়ে অস্ত্রোপাচারের সময় এক কলেজ ছাত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় নার্সসহ এক পরিচালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পাশাপাশি  স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আদালতের নির্দেশে অভিযান চালিয়ে ক্লিনিকটি সিলগালা করে দিয়েছে।

 

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন শেখ ফজলে রাব্বি গতকাল বুধবার (১১ নভেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ক্লিনিকটিতে অভিযান পরিচালনা করেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন। এরপরই ক্লিনিকের একজন নার্সসহ পরিচালককে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

 

এ বিষয়ে চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল আমিন জানান, আগামীকাল এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।

 

সিভিল সার্জন ডাঃ শেখ ফজলে রাব্বি জানিয়েছেন- আদালতের নির্দেশে সিটি হেলথ্ ক্লিনিক নামের একটি হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করে ক্লিনিকটিকে সিলগালা করে দেয়া হয়েছে। পরে পুলিশ একজন নার্সসহ প্রতিষ্ঠানটির পরিচালককে গ্রেপ্তার নিয়ে নিয়ে যায়।

 

ক্লিনিকটিতে নানা অনিয়মের কথা তুলে ধরে সিভিল সার্জন শেখ ফজলে রাব্বি বলেন, অনুমোদন ছাড়া হাসপাতালটি পরিচালিত হচ্ছিল, অনেক দিন ধরে নবায়ন নেই। রাতে ডাক্তার থাকে না। এমনকি ডিপ্লোমা সার্টিফিকেটও নেই ক্লিনিটটির। অথচ চকবাজারের মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি জায়গায় চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছিলো। অনূমোদনহীন হাসপাতালটি বন্ধ করে দেয়া হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদেরকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

 

অভিযানের সময় ১০ শয্যার সিটি হেলথ ক্লিনিকে ৭ জন রোগী ভর্তি ছিলেন। সেসময় চারজন রোগী ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি চলে যান। বাকি তিন রোগীকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

জানা যায়, অবৈধ এ ক্লিনিকতে বেশ কিছুদিন আগে এক স্কুল ছাত্রীকে নার্স দিয়ে অস্ত্রোপাচার করিয়ে গর্ভপাতের চেষ্টা করা হয়। যার কারণে ওই স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু হয়। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়ায়। একপর্যায়ে আদালত ক্লিনিকটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আদেশ দেন।

 

চট্টগ্রামের বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর বিষয়ে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে জানিয়ে সিভিল সার্জন বলেন, ‘স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে নির্দেশনা এসেছে। কোনো চিকিৎসাকেন্দ্রে অনিয়ম ও ত্রুটি পাওয়া গেলে সেগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

 

এর আগে সিভিল সার্জন নগরের হালিশহর এলাকায় আল-আমিন ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামে আরও একটি প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে যান। এ সময় হাসপাতালটির এ-ক্সরে বিভাগে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়ায় বিভাগটি সিলগালা করে দেয়া হয়।

 

চট্টগ্রাম


শেয়ার